1. admin@samokalbarta.com : admin :
শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পুুলিশ সপ্তাহ-২০২৪ উপলক্ষ্যে ২০২৩ সালে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার অভিযানে মাগুরা জেলা পুলিশ পুরস্কৃত মাগুরায় কতৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাছ কর্তন মাগুরায় চোর এবং চোরাই মালমাল ক্রয় বিক্রয়ের সাথে জড়িত ০৫ সদস্য আটক মাগুরায় জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০২৩ এর বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ মাগুরায় ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ জেলা প্রশাসনের সম্মানন প্রদান  মাগুরায় স্বাস্থ্য সহকারী পদে নিয়োগ পরীক্ষায় প্রক্সি দেয়ার অভিযোগে চারজন আটক মাগুরা জেলায় বহুল কাঙ্ক্ষিত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণের চেক বিতরণ করলেন জেলা প্রশাসক  তিন ফসলি জমিতে মাগুরা মেডিকেল কলেজের প্রস্তাব মন্ত্রীরা যা বলছেন এবং যা করেন-সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা মাগুরায় বাংলাদেশের প্রথমবারের মত প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যায়ে স্থাপন করা হল স্মার্ট বোর্ড

ইতালি প্রবাসী সুরুজ মাতব্বরের প্রতারণা ও নির্যাতনে দিশেহারা রিমা

সমকাল বার্তা ডেস্ত :
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২১ মে, ২০২৩
  • ৭৯ বার পঠিত

আমি রিমা, গত ০৩/০১/২০২৩ আমার বিয়ে হয় ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার, কালামৃধা ইউনিয়নের দেওড়া গ্ৰাম নিবাসী মোঃ রাজ্জাক মাতুব্বর এর সেজো ছেলে ইতালি প্রবাসী সুরজ মাতুব্বর এর সাথে।

সে ইতালি থাকা অবস্থায় আমার এক দুঃসম্পর্কের আত্মীয়ের মাধ্যমে আমার খোঁজ পায়। সে আমার দুঃসম্পর্কের আত্মীয় কাছ থেকে আমার নাম্বার নিয়ে আমার সাথে যোগাযোগ করে। দেশে আসার আগে তার সাথে আমার কয়েকদিন কথা হয়। সে আমাকে প্রস্তাব দেয় বিয়ের পর ইতালি নিয়ে যাবে ওখানে গিয়ে আমাকে চাকরি দিয়ে দিবে। বিয়ের পর তার সাথে কথা হয় আমি আমার বাবার বাড়িতে অথবা ঢাকায় থাকবো, সে আমার কাগজ পত্র রেডি করে নিয়ে যাবে এবং খুব তাড়াতাড়ি প্রসেসিং শেষ করে আমাকে নিয়ে যাবে। আর যতদিন আমি দেশে থাকবো ততদিন আমার ভরণপোষণ দিবে। আমি একাউন্টিং এ এমবিএ করেছি সরকারি বাঙলা কলেজ থেকে। আমি যেহেতু শিক্ষিত তাই ভেবেছিলাম ওখানে গিয়ে যদি একটা চাকরি করতে পারি তাহলে আমার পরিবারের এবং আমার সংসারের হাল ধরতে পারবো। সে আমাকে ইতালি থাকা অবস্থায় বিভিন্ন ভাবে লোভ লালসা দেখিয়েছে। মূলত সে সব মিথ্যা বলেছে। আমাকে প্রলোভন দেখিয়েছে আমাকে বিয়ের তিন মাসের মধ্যে ইতালি নিয়ে যাবে। সে বলেছে সে অনার্স কমপ্লিট করেছে, ভাঙ্গা হাইওয়ের পাশে তার পাঁচ তলা বাড়ি আছে। আমার পরিবারের কাউকে দেখতে হবে না। তার এলাকায় তারা অনেক প্রভাবশালী। এমন ভাবে গুছিয়ে মিথ্যা কথা গুলো বলেছে তার এই কথা গুলো বিশ্বাস করি আমি আমার পরিবার। তারপরেও আমার পরিবার তার বাড়িতে যেতে চেয়েছে কিন্তু সে বলে এগুলো করার প্রয়োজন নেই তার কথা আমার পরিবার বিশ্বাস করে আর তার বাড়ি যাওয়া হয়নি। আসলে সে প্রতারক, মিথ্যাবাদী একদমই পড়ালেখা জানে না, মূর্খ্য একটা মানুষ, তার বাড়িতে ও তেমন কিছু নেই যেমন টা সে বলেছিল। গত ০৩/০১/২০২৩ আমাকে কোর্টে গিয়ে বিয়ে করে। সে আমাকে বলে ইতালি নিতে নাকি কোর্ট ম্যারেজের কাগজ লাগবে এজন্যই আমি কোর্টে যেতে রাজি হই। বিয়ের পর থেকে তার ভিন্ন রূপ বের হতে থাকে। বিয়ের দিন কাবিনের টাকা থেকে সে দুই লাখ টাকা উসুল লেখে এবং বলে দুই লাখ টাকার গহনা দিবে কিন্তু গহনা যেটা দিয়েছিল সেটা ছিল ধার করা। গত ১১/০১/২০২৩ তাদের বাড়ি থেকে প্রায় ১৫০ জন লোক নিয়ে আমার বাড়িতে এসে আমাকে নিয়ে যায়। আমার বাবা গরিব মানুষ তার সামর্থ্য নেই এতো লোকের আয়োজন করা, সে আমার বাবাকে বলে ধার দেনা করে হলেও অনুষ্ঠান করতে হবে, সে ইতালি গিয়ে আমার বাবাকে যত টাকা খরচ হয় দিয়ে দিবে। আমার বাবা ধার দেনা করে তাদের ১৫০ জন বর যাত্রী আপ্যায়ন করে। ইতালি যাওয়ার পর বাবার টাকার বিষয়ে আর কথা বলে না। যাই হোক তার বাড়িতে যেদিন আমাকে নিয়ে যায় তারপর থেকে তার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন ধরনের কথা আমাকে শুনতে হয়। বিয়ের দুই দিন পর যখন আমি আমার বাবার বাড়ি থেকে বেড়িয়ে আবার ওই বাড়িতে যাই তখন সে আর তার দুই বোন(বড়বোন- বিউটি, ছোট বোন কাকলি) মা(মন্জু বেগম) এবং ছোট ভাইয়ের বউ(সোনিয়া) আমার কাছে গহনা চায় আমি গহনা দিতে রাজি না হওয়ায় তারা আমাকে মারধর করে আমার কাছ থেকে গহনা কেড়ে নিয়ে যায়। আমাকে চুল ধরে পিঠে এবং ঘাড়ে আঘাত করে যেটার জন্য আমি এখনো চরম ব্যথা এবং যন্ত্রণায় ভুগছি। তারা বলে আমার বাবা গহনা দেয়নি, তাদের ঘর সাজাতে ফার্নিচার দেয়নি। ওগুলো আমার বাবার কাছ থেকে যৌতুক হিসেবে নিয়ে যেতে হবে। আমাকে আঘাতের পর তারা বাড়িতে জিম্মি করে রাখে, ডাক্তারের কাছে ও নিয়ে যায়নি। আমার অবস্থা প্রচণ্ড খারাপ হতে থাকে তখন সে এবং তার ভাবী বোন মিলে আমাকে তাদের বাজারে গ্ৰাম্য একজন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়, ডাক্তার জিজ্ঞাসা করেন কি ভাবে এতোটা আঘাত পেয়েছেন, আমি বলতে গেলে তারা আমাকে চুপ করিয়ে তারা বলতে থাকে, আমাকে ডাক্তারের সাথে কোনো কথাই বলতে দেয়নি। তারা ডাক্তারকে বলে আমার পিঠে ঘুমের মধ্যে রগে টান লেগেছে এই কথা শুনে চুপ করে তাকিয়ে থাকা ছাড়া কোনো উপায় ছিলোনা আমার। বাড়িতে আসার পর তারা আমাকে আবারও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে কেন আমি ডাক্তারের কাছে এগুলো বলতে চেয়েছি। যখন আবারও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে তখন আমি বলেছি আইনগত ব্যবস্থা নেবো এজন্য তারা আমাকে সবসময় চোখে চোখে রাখতো যেন কোনো ভাবেই আমি বাড়ি থেকে বের হতে না পারি। আর এভাবেই চলতে থাকে আমার উপর অমানবিক নির্যাতন। আমি শিক্ষিত মেয়ে, এতোদিন ভয় এবং পরিবারের সম্মানের কথা চিন্তা করে কাউকে কিছু বলতেও পারিনি এবং আব্বু আম্মুকে ও বলতে পারিনি তারা টেনশন করবে এই ভয়ে। এভাবে এক মাস ধরে তাদের বাড়িতে তারা আমাকে শারীরিক মানসিক নির্যাতন করে। এই এক মাসের মধ্যে আমাকে আমার বাবার বাড়িতে আসতে দেয়নি একবার ও। সে ইতালি যাওয়ার দুই দিন আগে ও সে এবং তার দুই বোন(বড়বোন- বিউটি, ছোট বোন- কাকলি, মা(মন্জু বেগম) এবং ছোট ভাইয়ের বউ(সোনিয়া)আমার উপর হামলা করে, আমাকে প্রচন্ড মারধর করে আমার মাথাটা দেওয়ালের সাথে অনেক জোরে জোরে আঘাত করে। তারা বলে আমার বাবা কেন ফার্নিচার কিনে দেয়নি তাদের টাকা দিয়ে কেন ফার্নিচার কিনতে হলো. সেদিন ও আমাকে আঘাত করার পর কোনো ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়নি। আমি চুপচাপ তাদের অত্যাচার সহ্য করে অপেক্ষা করতে থাকি তার চলে যাওয়ার দিন আসা পর্যন্ত। সে চলে যাবে ইতালিতে, তাকে এয়ারপোর্টে এগিয়ে দেওয়ার কথা বলে আমি তার সাথে ওই বাড়ি‌ থেকে একসাথে বের হয়ে ঢাকায় চলে আসি। ১১/০২/২০২৩ তারিখে তাকে এয়ারপোর্টে এগিয়ে দিয়ে বিকালে আমি ডাক্তার দেখাই অধ্যাপক কে দেখালে তিনি অবাক হয়ে বলে এতো জোরে আঘাত পেয়েছেন কি করে, আমি তখন উনার সামনে কান্না করে ফেলি উনাকে কিছু কথা বলাতে তিনি বলে মামলা করে দিন সব অমানুষ গুলোকে আইনের আওতায় নিয়ে আসেন। ঢাকা থেকে ডাক্তার দেখিয়ে তারপর আমি আমার বাবার বাড়িতে চলে আসি। সে আমাকে অনুরোধ করেছিল আমি যেন তাদের বিরুদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা না নেই। সে আমার চিকিৎসার সমস্ত খরচ বহন করবে কিন্তু সে ইতালি যাওয়ার পর আমাকে অল্প কিছু টাকা দেয় ডাক্তার দেখানোর জন্য। এরপর থেকেএরপর থেকে সে আমাকে আমার চিকিৎসার খরচ এবং ভরণপোষণ বাবদ কোনো টাকা দেয় না। এখন তারা সবাই মিলে আমাকে চাপ সৃষ্টি করছে তাদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য, বলে ওখানে না গেলে আমার কোনো খরচ দিবে না। কিন্তু আমি যেখান থেকে একবার নিজের প্রান বাঁচিয়ে কোনো রকম বের হয়ে আসছি, সেখানে আবার গেলে তারা আমাকে প্রানে মেরে ফেলবে। সে ইতালি যাওয়ার পর তার ছোট বোন(কাকলি) ছোট ভাইয়ের বউ(সোনিয়া) আমাকে ফোনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং হুমকি দেয় আমি কিভাবে ওই বাড়িতে গিয়ে সংসার করি এটা তারা করতে দিবে না। আমাকে তারা মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে অনেক বার। আমি বর্তমানে আমার বাবার বাড়িতে আছি, তারা আমার বাবা মা বোন ভগ্নিপতি সবাইকে ফোন দিয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। আমাকে নাকি বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাবে। তার নাকি অনেক ক্ষমতা, আইন মিডিয়া নাকি তার কিছুই করতে পারবে না। সে নাকি তার এলাকার এমপিকে মেরেছে, নেতাকে মেরেছে, তার থানার ওসিকে ছাদ থেকে ফেলে দিতে চেয়েছে এসব বলে আমাকে ভয় ভীতি দেখিয়ে চুপ করে থাকতে বলে। আমি যখন বললাম আমি আর চুপ থাকতে পারবো না আমি আইনি ব্যবস্থা নেবো তখন থেকেই তারা আমাকে ওই বাড়িতে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন লোক দিয়ে ফোন করিয়ে হুমকি ধামকি দিয়ে আমাকে ওখানে নেওয়ার চেষ্টা করছে। গত তাং ০৬-০৪-২০২৩ ইং আবারও তার বন্ধু পলাশকে দিয়ে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং আমার বাবা-মা কে হুকমি ধামকি দিয়েছে। পলাশ বলে আমি একা মেয়ে মানুষ, আমার কেউ নেই যে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবো। তাদের নাকি আইন এবং মিডিয়া কিছু করতে পারবে না। তাদের হাত অনেক লম্বা, তারা টাকা দিয়ে সব থামিয়ে দিবে। তারা কোনো ভাবে আমাকে ওখানে নিতে পারলেই আমাকে মেরে ফেলবে আমি নিশ্চিত। এই অবস্থায় আমি আমার বাবার বাড়িতে ও নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। যেকোনো মুহূর্তে আমার উপর হামলা হতে পারে। সে তার এবং আমার বিভিন্ন পরিচিত লোকের কাছে আমার সম্পর্কে খুব খারাপ খারাপ কথা বলে বেড়াচ্ছে। সে প্রথম থেকেই আমার সাথে প্রতারণা করে আসছে। সে জালিয়াতি করেই আমাকে বিয়ে করেছে আর বিয়ের পর তার সব কিছু যখন আমি ধরতে পারি তখন থেকেই আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করা শুরু করে। আমি এই প্রতারক, মিথ্যাবাদী, জালিয়াত বাটপার, অমানুষ এবং তার পরিবারের অমানুষ গুলো যারা আমাকে নির্যাতন করেছে সবার বিচার চাই। আর যেন আমার মতো কোনো মেয়ের সাথে এমন টা করতে না পারে। আমার মতো একটা শিক্ষিত মেয়ের সাথে তার মত একটা গন্ড মূর্খ লোক যে অত্যাচার অবিচার করেছে আর কোনো মেয়ের সাথে যেন এমনটা না হয় সেজন্য আমি আইনী ব্যবস্থা গ্ৰহন করে সবার সামনে তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে চাই। উল্লেখ্য যে সে গত তিন মাস ধরে আমার কোনো ভরণপোষন তো দেয়নি বরং গত ২৪/০৪/২০২৩ তারিখ আবার ও ফোন দিয়ে হুমকি ধামকি দিচ্ছে আমি কেন তাদের নামে থানায় জিডি করেছি। গত ২৭/০৪/২০২৩ এবং ০৬-০৫-২০২৩ তারিখে সে আবার ও ফোন দিয়ে আমি এবং আমার পরিবারের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দিয়েছে। ০৮-০৫-২০২৩ তারিখে সে আমার বোনের শ্বশুরবাড়িতে ফোন দিয়ে আমার বোন জামাই এবং তার পরিবারের লোকজনকে‌ ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দিয়েছে। আমি জিডি করার পর থেকে সে বিভিন্ন ভাবে আমার বোনের শশুরবাড়ি এবং আমার চাচার কাছে ফোন দিয়ে হুমকি দিয়েছে আমি এবং আমার পরিবার এবং আমার বোন জামাই ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করবে। সে নাকি তার এলাকার এবং আমার এলাকার নেতাদের দিয়ে আমাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাবে বলে হুমকি দিয়েছে। সে থানা পুলিশ মিডিয়া টাকা দিয়ে কিনে নিবে, টাকা দিলেই নাকি সবাই তার পক্ষে কথা বলবে। সে নাকি আমি আমার পরিবারের সদস্যদের হয়রানি করার জন্য যত টাকা লাগবে রেডি করে রেখেছে। আমার বাবা অসহায় মানুষ, গ্ৰামের মানুষ, তার এই হুমকি ধামকি শুনে সে ভয় পাচ্ছে। এখন আমি এবং আমার পরিবারের সদস্যরা সব সময় আতঙ্কের মধ্যে আছি, যেকোনো সময় আমাদের উপর হামলা হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা